সংক্ষেপে ক্লিক করে ইনকাম বা অ্যাপস দিয়ে ইন্টারনেট থেকে রােজগার

সংক্ষেপে ক্লিক করে ইনকাম বা অ্যাপস দিয়ে ইন্টারনেট থেকে রােজগার

অ্যাপস থেকে ইনকাম বা ক্লিক করে ইনকাম ? হ্যা আমি ঠিকই বলছি । মনে করে দেখুন , আপনিও এ রকমটিই শুনেছিলেন । ক্লিকের কাজ করে ইনকাম করা যায় । এখন বর্তমানে আবার মােবাইল অ্যাপ্লিকেশনের ( অ্যাপস ) মাধ্যমে ইনকাম করা যায় বলে আমরা সবাই মােবাইল থেকে কিছু টাকা

রােজগারের ধান্দায় গুগল ও ইউটিউবে অনেক অ্যাপস খুঁজি ,
যেগুলােকে আমরা বলি ‘ আর্নিং অ্যাপস ।

না ! এই বইটি এসব অ্যাপস নিয়ে আলােচনা করবে না । এই বইটিতে ভালাে ও খারাপ সাইড নিয়ে আলােচনা হবে এবং তারপরে আপনাদের আসল এবং স্থায়ীভাবে অনলাইনে উপার্জনের পদ্ধতি শেখানাে হবে ।

আমি আশা করব আপনি স্কিপ করে ফ্রিল্যান্সিং চ্যাপ্টারে চলে যাবেন না । উইকিপিডিয়া অনুসারে আনুমানিক ১৯৯৭ সালে PAID TO CLICK ( PTC ) নামে একটি ইনকাম পদ্ধতি শুরু করা হয় কিছু ওয়েবসাইটে । এর কয়েক বছর পর থেকে অনেক পিটিসি ওয়েবসাইট তৈরি হয় ।

যেমন- Neobux , Paidverts , Clixsense ইত্যাদি ইত্যাদি । এগুলাের মধ্যে আবার অনেক ওয়েবসাইট ছিল ভুয়া । যেখানে একটি অ্যাকাউন্ট করে প্রতিদিন কিছু সংখ্যক ক্লিক। ক্লিক করে ইনকাম

Best bangla technology website

করলে মাসে ৪০-৫০ ডলার ইনকামের সুযােগ দেওয়া হত । এবং এই অ্যাকাউন্টের সাথে অন্য অ্যাকাউন্ট রেফারেল হিসেবে দিলে ইনকাম আরও একটু বেশি হতাে । আবার এই অ্যাকাউন্টে সিলভার , গােল্ডেন , প্লাটিনাম ইত্যাদি নামে মেম্বারশিপ প্রায় ৫ ৫০০ ডলার পর্যন্ত ডিপােজিট করে অ্যাকাউন্ট করলে
প্রতিদিন ইনকাম একটু বেশি হতাে ।

এ অবস্থায় অনেকেই বেশি বেশি করে ইনভেস্ট করত বেশি উপার্জনের জন্য । এভাবে যখন চলতে থাকে তখন কিছু ওয়েবসাইট মানুষের টাকা এভাবে নিয়ে বন্ধ হয়ে যায় । মানুষ হয়ে যায় প্রতারণার শিকার আর এভাবেই আপনারাও বিশ্বাস হারিয়েছেন । ক্লিক করে ইনকাম

যা – ই হােক , বর্তমানে অ্যাপস – এর ইনকামের ব্যাপারটিও প্রায় একই । অ্যাপস সম্পর্কে বেশিকিছু লিখতে ইচ্ছুক নই । কারণ আমি একজন এক্সপার্ট হয়ে এক লাইনে বলতে চাই ‘ বর্তমানে অধিকাংশ অ্যাপস – এর ইনকামের ধান্দা মানে লেখাপড়া নষ্ট ছাড়া আর কিছু না । একজন ফ্রিল্যান্সার হতে গেলে , ল্যাপটপ বা কম্পিউটার অবশ্যই প্রয়ােজন রয়েছে ।

Youtube/website থেকে মাসে আয় করুন 200 ডলার

Itbogura

যদিও ইউটিউবে অনেক ভিডিওতে দেখা যায় যে অমুক অ্যাপস দিয়ে ভিডিও ভিউ করে , ক্লিক করে , শেয়ার করে ইত্যাদি করে দিনে এত টাকা বিকাশে ইনকাম করুন ইত্যাদি । এসব কিছু সত্য , কিছু ভুয়া । আর যেসব অ্যাপস থেকে আসলে কিছু টাকা দেয় । সেগুলাে দিয়ে আপনার মেগাবাইট কেনার টাকাও উঠবে না বরং যে সময়টা যাবে সে সময়টা লেখাপড়া করলে তার থেকে লাখাে গুণ লাভবান হবেন ।ক্লিক করে ইনকাম

এই বইয়ে সম্পূর্ণভাবে ক্যারিয়ার নিয়ে আলােচনা হবে । আমার লাইফে আমি এধরনের কোনাে অ্যাপসকে ২-৪ বছর টানা পেমেন্ট করতে দেখিনি । এমনকি মাসে অন্তত ৫০ ডলার ইনকামের প্রমাণও পাইনি । আপনি যদি আসলেই লেখাপড়ার

পাশাপাশি ভালাে অ্যামাউন্টের অর্থ উপার্জন করতে চান এবং ভবিষ্যতে সফল হতে চান , তবে বইটিতে মনােযােগী হন । কথা দিচ্ছি সফলতা আসবেই ইনশাআল্লাহ । অহেতু সময় নষ্ট করার কোনােই প্রয়ােজন নেই । সুতরাং কোনাে অ্যাপস আপনাকে ক্যারিয়ার গড়ে দিতে পারবে না । অনলাইনে ক্যারিয়ার গড়তে গেলে নিজের হাতে এবং ব্রেইন খাটিয়ে কাজ করতে হবে । আর যে কাজটি করবেন সেটি অবশ্যই আপনার শেখা কোনাে কাজ হতে হবে ।

এমন নয় যে শুধু ক্লিক করলাম আর টাকা ব্যাংকে ঢুকল । সুতরাং চলুন , আপনাদের শেখাই কীভাবে ফ্রিল্যান্সিং করে সফল হওয়া যায় , কীভাবে চিরদিন আয় করতে পারবেন

About admin

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *